আর্থিক অন্তর্ভুক্তি শক্তিশালীকরণে বিকাশ কার্যক্রমের প্রশংসায় আইএফসি প্রধান নির্বাহী

নভেম্বর ০৬, ২০১৪

ব্যাংকিং সেবা বহির্ভূত জনগোষ্ঠীর কাছে আর্থিক সেবা পৌঁছে দেবার জন্য বাংলাদেশের অন্যতম মোবাইল আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান বিকাশ এর প্রশংসা করেছেন ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জিন অং কাই।

আইএফসির প্রধান নির্বাহী সাম্প্রতিক বাংলাদেশ সফরের সময় বেশ কয়েকটি বিকাশ এজেন্ট পয়েন্ট পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি বলেন,  “ বাংলাদেশে আর্থিক অন্তর্ভুক্তি একটি শক্ত ভিত্তির উপর দাড় করাতে কাজ করছে বিকাশ। সাধারণ জনগণ এখন খুব সহজেই একটি নিয়মতান্ত্রিক কাঠামোর মধ্যে থেকে প্রয়োজনীয় আর্থিক সেবা পাচ্ছে।”

বিশ্ব ব্যাংকের বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান আইএফসি ২০১৩ সালে বিকাশ এ ইক্যুইটি  বিনিয়োগ করেছে।

আইএফসি প্রধান নির্বাহী বলেন, “সারা বিশ্বে যে অল্প কয়েকটি প্রতিষ্ঠান সফলভাবে মোবাইল মানি সেবা দিচ্ছে, বিকাশ তাদের মধ্যে অন্যতম। মোবাইল মানি সফলভাবে পরিচালনার ক্ষেত্রে বিকাশ একটি বৈশ্বিক উদাহরণ। অন্য অংশীদারদের মতন আমরাও বিকাশ এর সাথে যুক্ত হতে পেরে গর্বিত।”

একইসাথে তিনি মোবাইল মানি কার্যক্রমে ‘একটি গ্রাহক কেন্দ্রিক নীতি প্রণয়ন এবং তার ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য’ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রশংসা করেন। 

শুরুতে ব্র্যাক ব্যাংক এবং ইউএস ভিত্তিক মানি ইন মোশন এর মালিকানায় ২০১১ সালে চালু হওয়া বিকাশ এর বর্তমান গ্রাহক সংখ্যা ১কোটি ৪০ লাখ। আইএফসি এর বিনিয়োগের পর, ২০১৪ সালে বিশ্বের অন্যতম বড় ফাউন্ডেশন, বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন, বিকাশ এ বিনিয়োগ করেছে। সারাদেশে প্রায় ১ লাখ ৫ হাজার এজেন্ট পয়েন্টের মাধ্যমে ক্যাশ ইন এবং ক্যাশ আউট সেবা দিচ্ছে বিকাশ।

টাকা আদান প্রদানের পাশাপাশি, বিকাশ গ্রাহকরা তাদের মোবাইল ওয়ালেট ব্যবহার করে মোবাইল ফোন রিচার্জ, বেতন প্রদান এবং কেনাকাটা করতে পারছেন।