নিরাপত্তা পরামর্শ

একটু সচেতনতা আমাদের অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা থেকে রক্ষা করতে পারে। আপনার বিকাশ একাউন্ট এবং লেনদেনের নিরাপত্তা নিশ্চিতের লক্ষ্যে কিছু পরামর্শ নিম্নরুপঃ

করণীয়

১| সত্য, সঠিক, এবং পূর্ণাঙ্গ তথ্য দিয়ে রেজিস্ট্রেশন ফরমটি পূরন করুন। পরবর্তীতে, পিন ভুলে গেলে, মোবাইল ফোন হারিয়ে গেলে, অথবা, অন্য কোনো প্রয়োজনে, আপনার দেয়া এই তথ্যের মাধ্যমেই আপনার বিকাশ একাউন্টের মালিকানা যাচাই করা হবে। কাজেই, রেজিস্ট্রেশন শেষে গ্রাহক কপিটি বুঝে নিন এবং সংরক্ষন করুন।
২| আপনার পিন নম্বর, “সিক্রেট কোড”, এবং “সিকিউরিটি কোড” সবসময় গোপন রাখুন।
৩| আপনার “বিকাশ” লেনদেনের উপর পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ রাখতে এবং লেনদেন সম্পর্কে যথাযথভাবে অবগত থাকতে সবসময় আপনার নিজের “বিকাশ একাউন্ট” ব্যবহার করুন।
৪| প্রতিটি লেনদেনের পূর্বে এর বৈধতা এবং যথার্থতা নিশ্চিত করুন। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে “বিকাশ একাউন্ট নম্বর”, টাকার পরিমাণ, “সিকিউরিটি কোড”, “সিক্রেট কোড”, পিন, আপনার বিকাশ একাউন্ট এবং লেনদেন সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য ব্যবহার/ইনপুট দেয়ার সময় সতর্ক থাকুন।
৫| এজেন্ট পয়েন্ট থেকে ক্যাশ আউট এর সময় আপনার “বিকাশ মোবাইল মেন্যু” এর শুধুমাত্র “Cash Out from  Agent” অপশনের মাধ্যমেই ক্যাশ আউট করুন।
৬| প্রতিটি লেনদেনের পূর্বে এবং পরে আপনার একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করুন।
৭| প্রতিটি লেনদেনের পর “বিকাশ” থেকে প্রেরিত মেসেজের প্রাপ্তি সম্পর্কে নিশ্চিত হোন এবং মেসেজের মাধ্যমে পাওয়া ব্যালেন্স ইনফরমেশন এবং আপনার কাঙ্ক্ষিত ব্যালেন্সের মিল আছে কিনা তা যাচাই করে নিন।
৮। “বিকাশ” প্রেরিত কনফারমেশন মেসেজ পাওয়ার জন্যে আপনার মেসেজ ইনবক্স এ পর্যাপ্ত জায়গা রাখুন। ইনবক্স ফুল থাকলে আপনি এই কনফারমেশন মেসেজগুলো যথাসময়ে পাবেন না।
৯| মোবাইল ফোন হারিয়ে গেলে যত দ্রুত সম্ভব বিকাশ হেল্পলাইন ১৬২৪৭-এ জানান।
১০| যেকোনো তথ্যের প্রয়োজনে এবং তথ্যের যথার্থতা বা নির্ভরযোগ্যতা যাচাই করার জন্যে বিকাশ হেল্পলাইন ১৬২৪৭-ই একমাত্র সঠিক এবং বিশ্বাসযোগ্য উৎস।

বর্জনীয়

১| পিন নম্বর, “সিকিউরিটি কোড” এবং “সিক্রেট কোড” কখনই লিখে রাখবেন না এবং অন্য কাউকে জানতে দিবেন না। “বিকাশ”  কর্তৃপক্ষ কখনো আপনার পিন নম্বর, সিক্রেট কোড, অথবা সিকিউরিটি কোড  জানতে চাইবেন না।
২| লটারী জেতা, পুরষ্কার বা প্রতিযোগিতা, এই ধরনের কোনো মেসেজ বা ফোন কল এ সাড়া দিবেন না। এ ধরনের ফোন কল বা মেসেজের সত্যতা যাচাই করার জন্যে বিকাশ হেল্পলাইন ১৬২৪৭-এ যোগাযোগ করুন।
৩| পরিচিত ও নির্ভরযোগ্য ব্যাক্তি ছাড়া আপনার মোবাইল ফোন কাউকে ধার দিবেন না।
৪| নিজের লেনদেনের জন্যে অন্য কারো “বিকাশ একাউন্ট” ব্যবহার করবেন না। “বিকাশ” রেজিস্ট্রেশন সম্পূর্ণ ফ্রি, তাই নিজ মোবাইল নম্বরটিই রেজিস্টার করে নিন এবং নিজেই ব্যবহার করুন।
৫| কখনই “ Send Money” অপশনের মাধ্যমে এজেন্টের ব্যাক্তিগত একাউন্ট নম্বরে ক্যাশ আউট করবেন না।

বিঃ দ্রঃ প্রযুক্তিগতভাবে “বিকাশ” টাকা লেনদেনের একটি নিরাপদ মাধ্যম মাত্র, “বিকাশ” সেবা ব্যবহারে এবং ব্যবহারের প্রক্রিয়ায় গ্রাহকের ভুল, ভুল ব্যাখ্যা বা জালিয়াতির সুত্রপাত হলে “বিকাশ” কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না।
উল্লেখিত তথ্য শুধুমাত্র গ্রাহক সুবিধার্থে প্রদেয় এবং কোনো চুক্তি হিসেবে বিবেচ্য নয়। সকল তথ্য মুদ্রণের সময়কাল পর্যন্ত হালনাগাদ। “বিকাশ” কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনে যেকোনো সময়ে সেবার ধরন, বৈশিষ্ট্য, সুবিধা, এবং চার্জ যথাযথ উপায়ে পরিবর্তন করতে পারবেন। সকল সেবার উপর বিকাশ লিমিটেড এর নির্ধারিত শর্ত প্রযোজ্য।