নতুন বিকাশ একাউন্ট খোলা একদম সিম্পল! | বিকাশ

নতুন বিকাশ একাউন্ট খোলা একদম সিম্পল!

নতুন বিকাশ একাউন্ট খোলা একদম সিম্পল!

নতুন বিকাশ একাউন্ট খোলা একদম সিম্পল ! বর্তমানে সকল এয়ারটেল, বাংলালিংক, টেলিটক, গ্রামীণফোন এবং রবি গ্রাহকগণ বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন নিজের ফোনের বিকাশ অ্যাপ থেকেই! বিকাশ অ্যাপ ডাউনলোড করে অ্যাপ থেকেই ঘরে বসে একাউন্ট খুলতে পারবেন নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করে। 

বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে একাউন্ট খুলুন: 

বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে একাউন্ট খুলতে যা লাগবে-

১। স্মার্টফোন

২। জাতীয় পরিচয়পত্রের মূল কপি

পদ্ধতি:  

১। বিকাশ অ্যাপে গিয়ে লগইন/রেজিস্টার-এ ট্যাপ করুন। 

২। অপারেটর বেছে নিয়ে আপনার মোবাইল নাম্বারটি দিন। 

৩। মোবাইল নাম্বারে পাঠানো ভেরিফিকেশন কোড দিয়ে পরের ধাপে যান।

৪। শর্তাবলি পড়ে সম্মতি দিয়ে সামনে এগিয়ে যান।

৫। আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের সামনের ও পেছনের অংশের ছবি তুলুন। 

৬। প্রয়োজনীয় তথ্য চেক করে এগিয়ে যান। 

৭। ফোনের ক্যামেরা দিয়ে নিজের চেহারার ছবি তুলুন।

৮। এবার তথ্য সাবমিট করে এগিয়ে যান।

৯। ভেরিফিকেশনের কনফার্মেশন এসএমএস-এর জন্য অপেক্ষা করুন। এই তথ্য যাচাই করতে বিকাশ-এর ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।

১০। কনফার্মেশন এসএমএস পাওয়ার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে পিন সেট করতে হবে। পিন সেট করতে অ্যাপে এসে 'পিন সেট করুন'-এ ট্যাপ করে ৫ সংখ্যার পিন দিয়ে নিশ্চিত করুন।

১১। এবার বিকাশ অ্যাপে লগইন করুন।

* আপনার পিন নাম্বারটি সবসময় গোপন রাখুন

ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন পয়েন্টে ই-কেওয়াইসির মাধ্যমে একাউন্ট খুলুন:

নিকটবর্তী ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন পয়েন্টে বিকাশ একাউন্ট খুলতে নিয়ে আসুন-

১। মোবাইল ফোন

২। জাতীয় পরিচয়পত্রের মূল কপি

 

পদ্ধতি:

১। এজেন্ট আপনার মোবাইল নাম্বার ও অপারেটর নিশ্চিত করে একাউন্ট খোলার জন্য অনুমতি নেবেন। 

২। আপনার নাম্বারে পাঠানো রেফারেন্স নাম্বারটি নেবেন। 

৩। আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের সামনের ও পেছনের অংশের ছবি তুলবেন। 

৪। এজেন্ট ই-কেওয়াইসি এন্ট্রির জন্য আপনার একটি ছবি তুলবেন। 

৫। সফল রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হলে আপনি একটি কনফার্মেশন এসএমএস পাবেন। 

এজেন্ট পয়েন্টে কেওয়াইসি ফর্ম পূরণ করে বিকাশ একাউন্ট খুলুন:

নিকটবর্তী এজেন্ট পয়েন্টে বিকাশ একাউন্ট খুলতে নিয়ে আসুন-

১। মোবাইল ফোন

২। জাতীয় পরিচয় পত্র (মূল এবং ফটোকপি)

৩। ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি

গ্রাহক সেবায় বিকাশ একাউন্ট খুলুন:

নিকটবর্তী গ্রাহক সেবায় বিকাশ একাউন্ট খুলতে নিয়ে আসুন-

১। মোবাইল ফোন

২। জাতীয় পরিচয়পত্র (ফটোকপি) / ড্রাইভিং লাইসেন্স (মূল এবং ফটোকপি) / পাসপোর্ট (মূল এবং ফটোকপি)

৩। ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি

গ্রাহক সেবা কেন্দ্রে বিকাশ একাউন্ট খুলুন:

নিকটবর্তী গ্রাহক সেবা কেন্দ্রে বিকাশ একাউন্ট খুলতে নিয়ে আসুন

১। মোবাইল ফোন

২। জাতীয় পরিচয়পত্র (মূল এবং ফটোকপি)/ মূল ড্রাইভিং লাইসেন্স / মূল পাসপোর্ট

৩। ১ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি

একাউন্ট ওপেনিং ফরমটি পূরণ করুন এবং আপনার বৃদ্ধাঙ্গুলির ছাপ ও স্বাক্ষর দিন। 

 

বিকাশ একাউন্ট খোলার পর আপনাকে আপনার বিকাশ মোবাইল মেন্যুটি অ্যাক্টিভেট করে নিতে 

হবে। 

আপনার মোবাইল মেন্যু অ্যাক্টিভেট করতে নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করুন:

১। *২৪৭# ডায়াল করে বিকাশ মোবাইল মেন্যুতে যান।

২। “অ্যাক্টিভেট মোবাইল মেন্যু” বেছে নিন।

৩। বিকাশ একাউন্টের জন্য ৫ ডিজিটের পিন নাম্বারটি প্রবেশ করান

৪। কনফার্ম করার জন্য আপনার পিন নাম্বারটি আবার প্রবেশ করান  

* আপনার পিন নাম্বারটি সব সময় গোপন রাখুন

সকল প্রক্রিয়া সঠিক ভাবে সম্পন্ন হবার পর আপনার মোবাইল নাম্বারটি একটি বিকাশ একাউন্ট নাম্বার হিসেবে গণ্য হবে। আপনার বিকাশ একাউন্ট এর মাধ্যমে প্রাথমিক ভাবে মোবাইল রিচার্জ, অ্যাড মানি এবং ক্যাশ ইন সেবা ব্যবহার করতে পারবেন। তবে, আপনার KYC ফরম এর তথ্য যাচাই হয়ে গেলে, ৩-৫ দিনের মধ্যে আপনি “ক্যাশ আউট”, “ মোবাইল রিচার্জ “, “পেমেন্ট” এবং বিকাশ-এর  অন্যান্য সেবা সমূহ উপভোগ করতে পারবেন। আপনার একাউন্টটি সম্পূর্ণভাবে সক্রিয় হওয়ার পর *247# ডায়াল করে দিন রাত ২৪ ঘণ্টা, সপ্তাহে ৭ দিন বিকাশের সেবা ব্যবহার করতে পারবেন। একজন গ্রাহক গ্রাহক সেবা কেন্দ্র অথবা গ্রাহক সেবা থেকে একাউন্ট খুললে সাথে সাথে বিকাশ-এর সকল সেবা উপভোগ করতে পারবেন।

সার্ভিসেস
হেল্প